রংপুরে বিএনপির সমবেশে না”’শকতার তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ

ছবি সংগ্রহীত
চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও খুলনার পর উত্তরের বিভাগীয় নগরী রংপুরে বিএনপির গণসমাবেশ শনিবার। সমাবেশ ঘিরে নেতাকর্মীরা নানা ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছেন। এদিকে সমবেশে জামায়াত-শিবিরের উপস্থিতিতে নাশকতার ছকের তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।
এমন পরিস্থিতিতে প্রশাসন সতর্ক দৃষ্টি রাখছে সমাবেশ ঘিরে। নগরীর প্রবেশ পথে পুলিশের চেকপোস্ট বসবে শুক্রবার সকাল থেকে।

এ পরিস্থিতি নিয়ে জানতে চাইলে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার নুরেআলম মিনা যুগান্তরকে জানিয়েছেন, তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন, বিভিন্ন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তারা যে কোনো ধরনের সহিংসতা ঠেকাতে প্রস্তুত। তাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য আছে রংপুরের মিঠাপুকুর ও পীরগাছা থেকে বিএনপির সমাবেশে বিপুল সংখ্যক জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী উপস্থিত থাকবে।

এ জন্য তারা রংপুর কারমাইকেল কলেজের আশপাশে ও আশরতপুরসহ দর্শনা মোড়ে শিবির নিয়ন্ত্রিত ছাত্রাবাসগুলোতে অবস্থান নিচ্ছে। সেখান থেকে তারা সমাবেশ উপস্থিত থেকে যেন কোনো নাশকতা ঘটিয়ে অন্য কারো ওপর দায় চাপাতে না পারে সে জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, পুলিশ পেশাদারির ভিত্তিতে কাজ করে যাবে শেষ পর্যন্ত। কোনো উস্কানি বা কোনো ধরনের উত্তেজনা যেন কোনো সংঘাতে রূপ না নেয় সেজন্য সাদা পোশাকে নগরীতে ও সমাবেশ স্থলের চারপাশে গোয়েন্দা সংস্থাসহ সাদা পোশাকে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে।

পুলিশ সদস্যরা যেন ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি সামাল দিতে পারে; কোনো উস্কানিতে যাতে পা না দেয় সে জন্য প্রায় দেড় হাজারের অধিক পুলিশ সদস্যকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তাদের কোন পরিস্থিতিতে কী করতে হবে সে সম্পর্কে আগাম জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সরকারের পক্ষে এ সমাবেশ নিয়ে পুলিশের ওপর কোনো নির্দেশনা আছে কিনা- এম প্রশ্নের জবাবে ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষে এ ধরনেন সমাবেশকে কেন্দ্র করে কোনো বিশেষ নির্দেশনা রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ পায়নি। একটি রাজনৈতিক দল সমাবেশ করতেই পারে।

আমরা সেটি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ থেকে দেখছি। এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে কিছু সংগঠন একই মাঠে অভিন্ন সমাবেশের অনুমতি চাইলে আমরা তাদের বুঝিয়ে নিবৃত্ত করেছি।

আমরা সমাবেশে সব ধরনের নিরাপত্তা ও নাশকতার কথা বিবেচনা করে নগরীর সব প্রবেশ পথে শুক্রবার সকাল থেকে চেকপোস্ট বসিয়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার প্রস্তুতি নিয়েছি। আমরা চাই নিরাপদে সমাবেশ শেষ হোক
সূত্র যুগান্তর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *