কোনো জ’ঙ্গি নেই দেশে : ফখরুল

‘বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘দেশে কোনো জ’ঙ্গি নেই। এটা আওয়ামী লীগের সাজানো অ স্ত্র নির্বাচনি প্রচা রণায়। যা গত কয়েকদিন ধরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন। কিন্তুএবার জঙ্গিবাদ অস্ত্র আর কাজে আসবে না।’ শনিবার রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে বিভাগীয় বিএনপি আয়োজিত গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন।

যদিও বান্দরবান ও রাঙামাটি জেলার দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় সম্প্রতি সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে জঙ্গি ও বিচ্ছি ন্নতাবাদী সংগঠনের ১০ সদস্যকে আ টক করার কথা জানিয়েছে র‌্যাব।আট কদের মধ্যে নতুন জ ঙ্গি সংগঠন জামাতু ল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বিয়ার ৭ জন এবং পাহাড়ের বিচ্ছিন্ন তাবাদী সশস্ত্র স ন্ত্রাসী সংগ ঠন ‘কুকি চিন ন্যাসনাল ফ্রন্ট’র (কেএনএফ) ৩ জন রয়েছেন। এ সময় র‌্যাব সীমান্ত বর্তী একটি জ ঙ্গি প্রশি ক্ষণ ক্যা ম্প ধ্বং স ক রেছে। ক্যাম্প থেকে বিপুল পরি মাণ অ স্ত্র-গো লা বা রুদ, স ন্ত্রাসী গোষ্ঠীর পোশাক এবং অ স্ত্র ও গো লাবারুদ তৈরির বিভিন্ন সরঞ্জাম উ দ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যা বের কমা ন্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, সম্প্রতি জ ঙ্গিবাদে জড়িয়ে নতুন করে কথিত হিজ রতের নামে ঘরছাড়া তরুণরা জামাতুল আনসারের পাহাড়ি এলাকার আস্তা নায় আ শ্রয় নেয়। এসব আস্তা নায় হি জরত করা তরুণদের ভা রী অ স্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

কিন্তু বিএনপি মহাসচিব বলছেন, ‘দেশে কোনো জঙ্গি নেই। এটা আওয়ামী লীগের সাজা নো অ স্ত্র। এই পুরনো অ স্ত্র এবারের নির্বাচনি প্রচার ণায় কাজে আসবে না। মানুষ বুঝে গেছে এসব সাজানো নাট ক। কারণ মার্কিন যু ক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অনেক দেশ জানিয়েছে, বাংলাদেশে মতপ্রকাশে র স্বাধীনতা নেই। মানুষের ভো টাধিকার নেই। বি রোধী মতের ওপর নির্যা তন, হা মলা-মা মলা করা হচ্ছে। গুম-খুন করা হচ্ছে। তাই এবার আর জ ঙ্গি অ স্ত্র আর কাজে আসবে না।’

তিনি বলেন, ‘সমগ্র বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের অনেক মিডিয়া এই সমাবেশের দিকে তাকিয়ে আছে। সরকার নাকি জনগণকে ভয় পায় না। ভয় না পেলে গাড়ি কেন ব ন্ধ করতে হয়, কেন আমাদের নেতা দের গু লি করে মারে?’

ফখরুল আরও বলেন, ‘আওয়ামী সরকার গত ১৫ বছরে সব শেষ করে ফেলেছে। সব ক্ষেত্রে চু রি করেছে আওয়া মী লীগ। এমনকি আশ্র য়ণ প্র কল্পে চু রি করেছে। আমা দের ৬০০ নেতাকর্মীকে গু ম করেছে এই সরকার। সহ স্রাধিক মানুষকে হ ত্যা করেছে। আলে ম-ওলামাদের মি থ্যা মাম লায় গ্রে ফতার করেছে। এদের কি আর ক্ষ মতায় থাক তে দেওয়া যায়?’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *